আজ ভোর বেলা একটা ভয়ঙ্কর স্বপ্ন দেখে ঘুমটা ভেঙে গেল।

Uncategorized
আজ ভোর বেলা একটা ভয়ঙ্কর স্বপ্ন দেখে ঘুমটা ভেঙে গেল। স্বপ্নে দেখলাম আমি বিছানায় শুয়ে আর কেউ আমার নাকে মুখে বালিশ চাপা দিয়ে মারার চেষ্টা করছে। আর আমি হাত-পা ছুঁড়ে প্রাণপনে লোকটাকে ঠেলে সরিয়ে বাঁচার চেষ্টা করছি। বেশ কিছুক্ষণ ধস্তাধস্তির পরও যখন ওকে কাবু করতে পারিনি, একরকম নিরুপায় হয়ে বালিশে দিলাম এক কামড়। লোকটা সাথে সাথে আমাকে ছেড়ে দিয়ে হেঁড়ে গলায় বাবাগো মাগো বলে চিৎকার করে ধুতি তুলে দিলো দৌড়। লোকটার হোঁৎকা চেহারা দেখে নাইট ল্যাম্পের আলো আঁধারিতেও তাকে চিনতে বিন্দুমাত্র অসুবিধা হয়নি। আশেপাশে চেয়ে দেখলাম, আমার মাথার নিচের বালিশটা ছাড়া কোথাও কোনো বালিশ নাই। অর্থাৎ বুঝলাম, (স্বপ্নের মধ্যে) যা চাপা দিয়ে আমাকে মারার চেষ্টা করেছিল হোঁৎকা বুড়োটা সেটা বালিশ ছিলোনা।
আসলে হয়েছে কি, কাল রাত্তিরে জনৈক সৎজঙ্গির এই পোস্ট দেখার পর মহাভারতের একটা ঘটনা মনে পরে গেছিল। শ্রীকৃষ্ণ দ্বারা তার পিসতুতো ভাই শিশুপাল হত্যার ঘটনা। যারা জানেন তাদের জন্য নতুন করে লেখার কিছু নাই। কিন্তু যারা ভুলে গেছেন তাদের জন্য সংক্ষেপে লিখে দিলাম।
ভগবান শ্রী কৃষ্ণ নিজের পিসি শ্রুতশ্রভাকে কথা দিয়েছিলেন যে তিনি পিসতুতো ভাই শিশুপালের একশটা ধৃষ্টতা ক্ষমা করবেন। শিশুপাল একশো-এক তম বার কৃষ্ণকে অপমান করায় কৃষ্ণ নিজের সুদর্শন চক্র বের করে ঘ্যাচাং করে ধর মুন্ডু আলাদা করে দিয়েছিলেন।

আমি প্রাক্তন সৎজঙ্গি শুভজিত গায়েন প্রতিনিয়ত যেভাবে অনুকূলকে কাঠি করে চলেছি তা কাউন্ট করলে কবেই একশো পার করেছে। কিন্তু বেচারা অনুকূল, তার তো সুদর্শন চক্র নাই! যেও ছিল এক সবেধন নীলমণি লাঠি, সেটাও নাকি কোনো এক প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীকে দান করে দিয়েছিল। তাই আমাকে মারতে বালিশ . . .
সরি সরি, একটু ভুল বললাম। বুড়ো যখন পালাচ্ছিল তখন পষ্ট দেখেছি আমার ঘরে কোনো এক্সট্রা বালিশ ছিলোনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *